কাঁঠালের বিচির উপকারিতা

ফলের মৌসুমের শুরুতেই বাজারে আসতে শুরু করেছে ভিবিন্ন ফল।বাংলাদেশের জাতীয় ফল কাঠাঁল এবং ।তার মধ্যে কাঠাঁল অন্নতম। অনেকে নতুন বছরের কাঁঠাল স্বাদ গ্রহণ করে ফেলেছেন। কাঁঠালের উপকারিতা অনেকের জানা থাকলেও এর বীজের গুণাগুনের সম্পর্কে অনেকে অবগত নয়। ফলে কাঁঠালের কোষ খেয়ে অনেকেই এর বীজ ফেলে দেয়। সত্যিকার্থে কাঁঠালের কোন অংশ ফেলনার নয়।

 

 

কাঁঠালের কোষ খেতে যেমন ভারী মজা তেমনি এর বীজও। কাঁঠালের উপরি অংশ গরুর খাদ্য হিসেবেও কাজে লাগে। কাঁঠালকে ফল হিসেবে খাওয়ার সাথে যদি আপনি এর বীজকে তরকারী হিসেবে খান তাহলে এর থেকে আরো বাড়তি পুষ্টি ও স্বাস্থ্য উপকারিতা লাভ করবেন। কাঁঠালের বীচিকে খাওয়া যায় ভর্তা করেও। তাই জেনে নিন কাঁঠাল বীজের পাঁচটি উপকারিতা যা আপনি না খেয়ে ফেলে দিচ্ছেন।

 

 

 

 

 মানসিক চাপ রোগঃ

 

প্রোটিন ও মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টস দিয়ে ভরপুর কাঁঠালের বীজ। যার কারণে এটি মানসিক চাপ কমাতে বিশেষ কার্যকরী। এটি ত্বকের নানা রোগ দূর করতেও সাহায্য করে। ত্বকে ময়েশ্চারের মাত্রা বেশি রাখতে ও স্বাস্থ্যকর চুল পেতে নিয়মিত কাঁঠালের বীজ খেলে ভালো কাজে দেয়।

 

 অ্যানিমিয়ার শত্রুঃ

 

কাঁঠালের বীজে প্রচুর পরিমাণে আয়রণ থাকে। প্রতিদিন খাবারের তালিকায় কাঁঠালের বীজ রাখলে আপনার শরীরের আয়রনের মাত্রা বাড়তে থাকবে। হিমোগ্লোবিনের একটি উপাদান হচ্ছে কাঁঠালের বীজ। যার ফলে এটি খেলে অ্যানিমিয়া দূর হবে এবং তার সাথে আয়রন সুস্থ রাখবে আপনার মস্তিঙ্ক ও হার্টকেও।

 

 ভালো দৃষ্টিশক্তি স্বাস্থ্যকর চুল পানঃ

 

কাঁঠালের বীচিতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন এ থাকে। ভিটামিন এ চোখের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান। এটি রাতকানা কাটাতেও সাহায্য করে। ভিটামিন এ শুধু চোখ নয়, চুলের স্বাস্থ্যও ভালো রাখতে ভূমিকা রাখে। চুলের আগা ফেটে যাওয়া প্রতিরোধ করে ভিটামিন এ।

 

 হজমশক্তি বৃদ্ধিঃ

 

বদহজম প্রতিরোধে খুবই কার্যকরী ভূমিকা রাখে কাঁঠালের বীজ। এই উপকারটি পেতে কাঁঠালের বীজ রোদে শুকিয়ে চূর্ণ করে পাউডারের মতো করে ফেলুন। বদহজমে সহজ সাদাসিদে প্রতিকার হতে পারে এই পাউডার। তাছাড়াও এতকিছু না করে শুধু কাঁঠালের বীজ খেলেই কমবে কনস্টিপেশনের সমস্যা। কেননা কাঁঠালের বীজে প্রচুর পরিমাণ ফাইবার থাকে।

 

 

 বলিরেখা দূর করার জন্যঃ

 

ত্বকের বলিরেখা দূর করতে জাদুর মতো কাজ করে কাঁঠালের বীচি। ব্যবহার করতে একটি কাঁঠালের বীচি চুর্ণ করে কোল্ড ক্রিমের সঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুণ। এরপর তা নিয়মিত ত্বকে লাগান। বলিরেখা দৌঁড়ে পালাবে।

 

কাঁঠালের বীজ আপনার ত্বককে সজীব ও তরতাজা করে তুলতে সাহায্য করে। এটি ব্যবহার করতে দু-একটি বীজ দুধ ও মধুতে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রেখে তা দিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করে নিন। সেই পেস্ট সম্পূর্ণ মুখে লাগিয়ে শুকানোর পর্যন্ত অপেক্ষা করুণ। শুকিয়ে গেলে উষ্ণ গরম পানিতে মুখ ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন ত্বকের ঔজ্জ্বল্যতা বেড়ে দ্বিগুণ হয়ে যাবে।

 

Facebook Comments